বৃহস্পতিবার, ৩০ Jun ২০২২, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন

সিলেটে উদ্ধার অভিযানে সেনাবাহিনী, ঝুঁকির মুখে বিদ্যুৎ স্টেশন

সিলেটে উদ্ধার অভিযানে সেনাবাহিনী, ঝুঁকির মুখে বিদ্যুৎ স্টেশন

সিলেট প্রতিনিধি: সিলেটের আট উপজেলায় কাজ শুরু করেছে সেনাবাহিনীর সাত ব্যাটেলিয়নের সদস্যরা। দুপুর থেকে তারা উদ্ধার অভিযান শুরু করে। সিলেট সদর, গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, ছাতক, দিরাই, দোয়ারাবাজারে সেনা সদস্যরা পানিবন্দি লোকজনকে উদ্ধার কাজ শুরু করেছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ঝুঁকির মুখে রয়েছে সিলেট বিদ্যুৎ স্টেশন।

এর আগে দুপুরে সিলেটের ১৭ পদাতিক ডিভিশনের হেডকোয়ার্টারে এ নিয়ে ব্রিফিং করেন ডিভিশন প্রধান মেজর জেনারেল হামিদুল হক। তিনি জানান, সেনাবাহিনীর সদস্যরা প্রথমে গিয়ে উদ্ধার কাজ চালাবে। এরপর খাদ্য সহায়তা দেবে। প্রয়োজনে চিকিৎসা সেবাও প্রদান করা হবে। পাশাপাশি কুমারগাঁও বিদ্যুৎ স্টেশন, সুনামগঞ্জের খাদ্য গুদামগুলো কীভাবে বন্যা থেকে রক্ষা করা যায় সে ব্যাপারে মাঠে থাকা সেনা সদস্যরা কাজ করবেন।

এদিকে, সিলেটে হু হু করে পানি বাড়ছে। কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাটের বিভিন্ন এলাকার টিনের চালের উপর দিয়ে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্ধি হয়ে পড়েছেন।

কোম্পানীগঞ্জ সড়কে কয়েক হাজার বন্যার্ত মানুষজন এসে রাত থেকে অবস্থান নিয়েছেন। একই সঙ্গে সিলেট-তামাবিল সড়কেও এসে আশ্রয় নিয়েছেন মানুষ।
গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, জৈন্তাপুরসহ কয়েকটি এলাকার আশ্রয় কেন্দ্রে লোকজনের ঠাঁই হচ্ছে না। মানুষ জীবন বাঁচাতে আশ্রয়ের সন্ধান খুঁজছেন। সিলেটের কুমারগাঁও বিদুৎ কেন্দ্র ঝুঁকির মুখে রয়েছে। সেখানে সেনাবাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন।

সিলেট নগরের উপশহরসহ কমপক্ষে ৫০টি এলাকার লাখো মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় আছেন। সিলেট শহরের নদী তীরবর্তী শতভাগ এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। নগরের ৩১টি আশ্রয় কেন্দ্রে ঠাঁই হচ্ছে না।
সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন, আশ্রয় কেন্দ্র আরো বাড়াতে বাসা কিংবা সরকারী স্থাপনা খোঁজা হচ্ছে। বন্যা কবলিত এলাকার মানুষের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরণ চলছে।

ভাল লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন........

Leave a Reply

Your email address will not be published.




গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত... © কর্তৃপক্ষদ্বারা সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত |২০২০|
Design & Developed BY CHT Technology